1. shahjahanbiswas74@gmail.com : Shahjahan Biswas : Shahjahan Biswas
  2. ssexpressit@gmail.com : sonarbanglanews :
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:২১ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা আজ শুরু হচ্ছে পোস্তগোলা সেতু সংস্কার কাজ শুরু, যানজট এড়াতে বিকল্প পথ ব্যবহারের আহ্বান সুন্নাতে খৎনা করাতে গিয়ে আবারো শিশুর মৃত্যু, দুই চিকিৎসক গ্রেফতার মানিকগঞ্জে দুর্লভদী প্রিমিয়ার লীগ (DPL) শুরু শিবালয়ে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন মানিকগঞ্জে এনপিআই ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এর জাতীয় শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন মানিকগঞ্জে একুশের প্রথম প্রহরে ভাষাশহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা শহীদ মিনারে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা আজ মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস শিবালয়ে জাফরগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত

চা বাগান শ্রমিকদের জীবনমান উন্নতির জন্য গ্রহণ করা হচ্ছে প্রকল্প

  • সর্বশেষ আপডেট : সোমবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ৮৬ বার পড়েছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: চা বাগান শ্রমিকদের জীবনমান উন্নতির জন্য প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে। শুধু চা শ্রমিক নয়, এদের পোষ্য ও প্রকল্প এলাকার অসচ্ছল পরিবারের জীবনমানের উন্নতি যোগ হবে এই প্রকল্পের মাধ্যমে। এটি প্রত্যাশা সংস্থার ‘প্রচেষ্টা’ নামে একটি সংগঠন বাস্তবায়ন করবে। তবে মূল দায়িত্বে থাকবে সমাজসেবা অধিদফতর। যেখানে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৮ কোাট ৯৪ লাখ  ৮৪ হাজার টাকা। তবে এই ব্যয়ের পরিমাণ কমে আসতে পারে বলে পরিকল্পনা কমিশন থেকে আভাস পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, এই প্রকল্প গ্রহণ করার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে, শ্রমিক পরিবারের সব কর্মক্ষম ব্যক্তিদের আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা। কারণ, চা বাগানের শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি অনেক কম। প্রতিটি পরিবার থেকে একজন সদস্য বাগানের কাজ করার সুযোগ পায়। ফলে একজনের স্বল্প আয়ে পরিবারের দৈনন্দিন ব্যয় চালানো কষ্টসাধ্য হয়ে যায় । চা বাগানের মানুষেরা অনেক বছর ধরে স্বল্প আয়ে জীবনযাপন করছে।

এ ব্যাপারে প্রত্যাশা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক জানান, প্রকল্পের মাধ্যমে ৫টি জেলার ২০টি উপজেলার ৯ হাজার ৫০০ উপকারভোগীর মধ্যে সেলাই মেশিন, টেইলারিং, ভ্যান বিতরণ, হাঁস, মুরগির খামার ও ঘর করে দেওয়া হবে। পাশাপাশি প্রতিবন্ধীদের মধ্যে অটোরিকশা, হুইল চেয়ার বিতরণ করা হবে। এ ছাড়াও আত্মকর্মসংস্থানমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে।

এদিকে কুড়িগ্রাম জেলায় কোনো চা বাগান নেই। এরপরও এই জেলার চা বাগানের শ্রমিকদের কথা বলা হয়েছে। এ ছাড়াও আইএমইডি বিভাগ থেকে একটি কমিটি গঠনের সুপারিশ করা হয়েছে। বিশেষ করে ব্যয়ের বিষয়টি পর্যালোচনা করার উদ্দেশ্যে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এ ছাড়া প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত কুড়িগ্রামের চা বাগান বাদ দিতে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, প্রকল্পটি হবিগঞ্জ জেলার ৩টি উপজেলা, মৌলভীবাজারে ৭টি উপজেলা, সিলেটের ৪টি উপজেলা, পঞ্চগড়ের ২টি উপজেলা ও কুড়িগ্রামের ৪টি উপজেলা। তবে কুড়িগ্রামে তেমন কোনো চা বাগান না থাকায় এই জেলা বাদ দেওয়া হয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন :